মেনু নির্বাচন করুন
বিজ্ঞাপন

নক্সী কাঁথার মাঠ

নক্সী কাঁথার মাঠ  একটি কালজয়ী কাব্যগ্রন্থ। রচয়িতা কবি  জসীমউদ্দীন (১৯০৩-১৯৭৬ ) রচনাকাল ১৯২৯। নক্সী কাঁথার মাঠ একটি  শিল্পসফল কাহিনি কাব্য। কাব্যটি চোদ্দটি সর্গ বা ছোট ছোট দৃশ্যপটে বর্ণিত। কাব্যিকভাবে সবকটি দৃশ্য মিলে এতে একটি সামগ্রিক জীবনচিত্র ফুটে উঠেছে অসাধারণ শৈল্পিকতার সঙ্গে।

নাটকীয় দৃশ্য পরম্পরায় সজ্জিত এ কাব্যের কাহিনীচিত্র পল্লিকিশোর রূপা ও পল্লিকিশোরী সাজুর প্রেমের পটভূমি, বিকাশ  ও এর করুণ পরিণতিকে আশ্রয় করে দৈনন্দিন কর্মধারা, প্রতিদিনকার ঘরকন্নার অতি বাস্তব ছবি, গ্রামীণ উৎসব-অনুষ্ঠানের নিপুণ বর্ণনা, গ্রাম্য-কলহ, জমিজমা-সংক্রান্ত দাঙ্গাহাঙ্গামা, মামলা-মোকদ্দমা প্রভৃতি বিষয়ে পল্লবিত। এর প্রতিটি দৃশ্য স্বয়ংসম্পূর্ণ, বাস্তবধর্মী ও কবিত্বময়। রূপা ও সাজুর এ কাহিনিকে কবি ‘করুণ গাথা’ বলে আখ্যায়িত করেছেন কারণ মৃত্যুর মধ্যে দিয়ে দুটি প্রাণ প্রেমের জন্যে প্রায়শ্চিত্ত করেছে। আর নক্সী কাঁথার ফোঁড়ে ফোঁড়ে সে বেদনার কাহিনি বিধৃত হয়েছে।

“বহুদিন পরে গাঁয়ের লোকেরা গভীর রাতের কালে,

শুনিল কে যেন বাজাইছে বাঁশি বেদনার তালে তালে।

প্রভাতে সকলে আসিয়া দেখিল সেই কবরের গায়

রোগ পান্ডুর একটি বিদেশী মরিয়া রয়েছে হায়।

সারা গায়ে তার জরায়ে রয়েছে সেই নক্সী কাঁথা,

আজও গাঁর লোকে বাঁশী বাজাইয়া গায় এ করুণ গাথা।”

ছবি (এই বিজ্ঞাপনটি স্লাইড ব্যানারে দিতে চাইলে অবশ্যই ছবি দিতে হবে)


প্রকাশের তারিখ

২০১৭-১২-১১

আর্কাইভের তারিখ

২০১৮-০১-২৩

স্লাইড

1



Share with :

Facebook Twitter